You are currently viewing ১৩টি লাভজনক দৈনিক আয়ের ব্যবসা আইডিয়া – Best Daily Income Business Ideas
১৩টি লাভজনক দৈনিক আয়ের ব্যবসা আইডিয়া

১৩টি লাভজনক দৈনিক আয়ের ব্যবসা আইডিয়া – Best Daily Income Business Ideas

দৈনিক আয়ের ব্যবসা যার ইংরেজি অর্থ হলো Daily income business । অর্থাৎ যেসব ব্যবসা থেকে দৈনিক নিয়মিতভাবে টাকা আয় করা যায় সেইসব ব্যবসাগুলোকে দৈনিক আয়ের ব্যবসা বলা হয় । 

 

কমবেশি প্রত্যেকটি ব্যবসায় দৈনন্দিন কিছু ইনকাম থাকে । তবে কিছু ব্যবসা রয়েছে যেসব থেকে দৈনিক আয় করা যায় । যেমন :  কাঁচামাল , চায়ের দোকান , সিঙ্গারা সমুচা সাপ্লাই , ঝাল মুড়ি বিক্রি , ফুচকা বিক্রি , খাবার হোটেল এই ব্যবসাগুলো থেকে দৈনিক টাকা ইনকাম করা যায় ।

 

আজকের দৈনিক আয়ের ব্যবসা আর্টিকেলে আপনাদের সাথে লাভজনক কয়েকটি দৈনিক আয়ের ব্যবসার আইডিয়া শেয়ার করবো । এবং ব্যবসাগুলো কিভাবে শুরু করতে পারেন ,  ব্যবসাগুলো শুরু করতে পুঁজি কেমন প্রয়োজন হবে ইত্যাদি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হবে ।

 

তাই দৈনিক আয়ের ব্যবসা করতে আগ্রহী হলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন ।

 

দৈনিক আয়ের ব্যবসা কাকে বলে ?

 

দৈনিক আয়ের ব্যবসা হলো যে ব্যবসা থেকে আপনি প্রতিদিন অর্থ উপার্জন করতে পারবেন সে ব্যবসাকে দৈনিক আয়ের ব্যবসা বলে । 

 

অন্যদিকে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা ,  ব্লগিং ব্যবসা ,  ইমপোর্ট এবং এক্সপোর্ট ব্যবসা হল দৈনিক আয়ের ব্যবসার বাহিরে । এর কারণ এই ব্যবসাগুলো শুরু করার সাথে সাথে আপনি দৈনিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন না ।

 

বিপরীতে মুদি দোকান , কাঁচামালের ব্যবসা ,  চায়ের দোকান , খাবারের হোটেল , ঝালমুড়ি বিক্রি ,  ফুচকা বিক্রি এই ধরনের ব্যবসাগুলো শুরু করার সাথে সাথেই আপনি দৈনিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

 

১৩টি লাভজনক দৈনিক আয়ের ব্যবসা আইডিয়া 

 

দৈনিক আয়ের ব্যবসা কি তা সম্পর্কে আপনাদের সাথে উপরে আলোচনা করা হয়েছে । এবার চলুন বন্ধুরা কয়েকটি লাভজনক দৈনিক আয়ের ব্যবসা আইডিয়া দেখে নেওয়া যাক ।

 

১/ মুদি দোকানের ব্যবসা

মুদি দোকানের ব্যবসা
মুদি দোকানের ব্যবসা

আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী যে দোকানে পাওয়া যায় মূলত সেই দোকানটিকে আমরা মুদি দোকান নামে চিনে থাকি ।

একটি মুদি দোকানে আলু , পেঁয়াজ , আদা , রসুন , মুড়ি , ডিম , তেল , চাউল , মশলা ইত্যাদি প্রতিদিনকার পণ্য সামগ্রী পাওয়া যায় ।  তাই দৈনিক আয়ের ব্যবসার খোজঁ করে থাকলে মুদির দোকান আপনার জন্য উপযুক্ত একটি ব্যবসা হবে ।

কারণ মুদি দোকানে যেসব পণ্য সামগ্রীগুলো বিক্রি করা হয় তার প্রচুর চাহিদা রয়েছে ।  এবং এইসব এইসব পণ্য আমাদের প্রতিদিন প্রয়োজন হয় ।

 

মুদির দোকান ব্যবসা করতে কেমন পুঁজির প্রয়োজন ? 

 

একটি মুদির দোকান শুরু করতে আপনার ৩লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকা পুজিঁর প্রয়োজন হবে । এই পরিমাণ মূলধন বিনিয়োগ করে আপনি একটি খুচরা পণ্যের মুদির দোকানের ব্যবসা শুরু করতে পারবেন । 

 

মুদির দোকানের ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের মুদির দোকানের ব্যবসা আর্টিকেলটি পড়ুন । 

 

২/ কাচাঁমালের ব্যবসা

 

কাঁচামালের ব্যবসা অল্প পুজিতে একটি লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া ।  পাশাপাশি কাঁচামালের ব্যবসা হল একটি দৈনিক আয়ের ব্যবসাও বটে ।  কাঁচামাল আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় একটি পণ্য সামগ্রী ।

 

বিশেষ করে কাঁচা শাকসবজি আমাদের দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় নিয়মিত থাকে । যার ফলে আপনি কাঁচামালের ব্যবসা করে একটি দৈনিক আয়ের ব্যবসা গড়ে তুলতে পারবেন ।

 

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনাকে পাইকারি কাঁচামালের বাজার থেকে কাঁচামাল ক্রয় করে নিয়ে আসতে হবে ।  এবং তা আপনি বিভিন্ন বাজার- হাট অথবা ভ্যান গাড়ি করে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে  খুচরা দামে বিক্রি করতে পারেন ।

 

এভাবে আপনি কাঁচামালের ব্যবসা করে দৈনিক আয় করতে পারবেন । কিভাবে লাভজনক এই কাঁচামালের পাইকারি ও খুচরা ব্যবসা করবেন তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের কাঁচামালের ব্যবসা আর্টিকেলটি পড়ুন । 

 

৩/ কফি / চায়ের দোকানের ব্যবসা

 

কফি এবং চায়ের দোকানের ব্যবসা হল দৈনিক আয়ের ব্যবসার জন্য উপযুক্ত একটি ব্যবসার আইডিয়া ।  কোন পর্যটন এলাকা বা বাজার- হাটের মধ্যে কফিশপ বা চায়ের দোকান ব্যবসা দিতে পারলে আপনি দৈনিক ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

 

কফি এবং চা বিক্রির পাশাপাশি আপনি বিভিন্ন নাস্তা বিক্রি করে অতিরিক্ত টাকা ইনকাম করতে পারবেন । 

 

একটি কফি শপ বা চায়ের দোকান ব্যবসা শুরু করতে কেমন পুঁজি প্রয়োজন ?

 

একটি ভালো কফি শপ অথবা চায়ের দোকান ব্যবসা শুরু করতে আপনার ৩ থেকে ৫লক্ষ টাকার মতো পুঁজি প্রয়োজন হবে ।

 

৪/ সিঙারা – সমুচা সাপ্লাইয়ের ব্যবসা

 

দোকান দিয়ে ব্যবসা করার জন্য আপনার কাছে যদি পর্যাপ্ত পরিমাণ মূলধন না থাকে সেক্ষেত্রে আপনি সিঙ্গারা সমুচা সাপ্লাইয়ের ব্যবসা করে দৈনিক আয়ের ব্যবসা করতে পারেন ।

 

সিঙ্গারা-সমুচা তৈরি করার জন্য কাঁচামাল ক্রয় করে বাসার মধ্যে একজন কারিগর দ্বারা সিঙ্গারা -সমুচা তৈরি করে বিভিন্ন কুলিং কর্ণার ও চায়ের দোকানগুলোতে তা সাপ্লাই দিতে পারেন । 

 

সিঙ্গারা সমুচা সাপ্লাইয়ের এই ব্যবসাটি আপনি মাত্র ১০ থেকে ২০ হাজার টাকায় শুরু করতে পারবেন । তবে শুরুর দিকে অল্প পরিমাণে সিংগারা-সমুচা তৈরি করার চেষ্টা করুন । পরিচিতির অভাবে শুরুতে তেমন অর্ডার নাও পেতে পারেন ।

 

তাই ধীরে ধীরে ব্যবসার প্রচার-প্রচারণা ও মার্কেটিং করুন এবং সিংগারা সমুচার গুণগত মান ঠিক রাখুন । তাহলে লক্ষ করবেন ধীরে ধীরে আপনার এই সাপ্লাই ব্যবসাটি বড় হয়ে উঠছে । 

 

৫/ ঝালমুড়ি বিক্রির ব্যবসা

 

দৈনিক আয়ের আরো একটি ব্যবসা হলো ঝালমুড়ি বিক্রির ব্যবসা ।  আপনার কাছে যদি মুদি দোকান , কাঁচামালের ব্যবসা অথবা চায়ের দোকান করার মতো পর্যাপ্ত মূলধন না থাকে সেক্ষেত্রে আপনি ঝাল মুড়ি বিক্রির ছোট ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন ।

 

ছোট ব্যবসা বলে এটিকে হেয় করার কোন উপায় নেই ।  ব্যবসাটি ছোট হলেও অল্প টাকা বিনিয়োগ করে অন্যান্য ব্যবসার তুলনায় অধিক লাভ করা যায় ।

 

আপনি মাত্র ২০০০ টাকা ব্যবসা শুরু করে এই বিজনেস থেকে দৈনিক প্রায় ৫০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন । এবং প্রতি মাসে প্রায় ১৫,০০০ টাকার মতো আয় করতে পারবেন ।

 

এভাবে কয়েক মাস এই ব্যবসা করার পর আপনি আপনার সঞ্চিত অর্থ দিয়ে অন্য আরো ব্যবসা করতে পারেন ।  অথবা আপনার ঝালমুড়ি ব্যবসা থেকে আরো বড় করে গড়ে তুলতে পারেন ।

 

৬/ শরবত বিক্রির দৈনিক আয়ের ব্যবসা

 

শরবত বিক্রির দৈনিক আয়ের ব্যবসাটি হল মূলত একটি সিজনাল ব্যবসার আইডিয়া ।  আপনি এই মৌসুমী ব্যবসাটি করে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন ।

 

বিশেষ করে গ্রীষ্মকালের সময় আমাদের বাংলাদেশের প্রচুর গরম পড়ে থাকে । এবং এই গরমের সময় আপনি বিভিন্ন ধরনের শরবত তৈরি করে বিক্রি করতে পারেন ।  আমরা প্রায় সময় রাস্তা ঘাটের পাশে বিভিন্ন ছোট স্টলে দেখতে পায় বিভিন্ন শরবত তৈরি দোকান ।

 

আপনিও এরকম ছোট একটি স্টল নিয়ে শরবত বিক্রি করে মৌসুমি ব্যবসা করতে পারেন ।  অন্যতায় পুঁজি কম হলে আপনি একটি ভ্যান গাড়িতে প্রয়োজনীয় শরবত তৈরির উপকরণগুলো নিয়ে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন ।

 

গ্রীষ্মকাল চলাকালীন প্রতিদিন আপনি এই দৈনিক আয়ের ব্যবসা থেকে প্রচুর পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন । এই ব্যবসায় অন্যান্য ব্যবসার তুলনায় লভ্যাংশের হারও অনেক বেশি ।

 

যদি টাকা ইনকাম করার তারনা থাকে তাহলে লজ্জা-শরম ভুলে এই ব্যবসাটি শুরু করে দিন ।  সকল সফল ব্যবসায় উদ্যোগতারা একসময় কোনো-না-কোনো ছোট ব্যবসা দিয়েই তাদের ব্যবসা শুরু করেছিল ।

 

আপনাদেরকে কয়েকটি আর্টিকেল পূর্বে বলেছিলাম এস ডি অ্যালমুনিয়াম কোস্পানীর মালিক সুদিপ দত্তের গল্প । তিনি মাত্র ১৫ টাকা দিয়ে তার ব্যবসা শুরু করেছিলেন কিন্তু বর্তমানে তিনি ১৬০০ কোটি টাকার মালিক । 

 

তাই কোন ব্যবসাকে ছোট মনে করে হেয় করার কোন কারণ নেই ।  আপনার কাছে যতটুকু পরিমাণ পুঁজি রয়েছে তা দিয়ে সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন ব্যবসা শুরু করার । 

 

৭/ চটপটি / ফুচকা বিক্রির দৈনিক আয়ের ব্যবসা

 

আমাদের বাংলাদেশ এবং আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতের মানুষদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখরোচক একটি খাবার হলো ফুচকা ও চটপটি । বিশেষ করে ভারত ও বাংলাদেশের নারী শ্রেণীদের  কাছে ফুচকা খাবারটি অত্যন্ত জনপ্রিয়।

 

আপনি একদম অল্প মূলধন বিনিয়োগ করেই এই চটপটি ও ফুচকা বিক্রির দৈনিক আয়ের ব্যবসাটি  শুরু করতে পারবেন । 

 

মাত্র ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে আপনি একটি চটপটি ও ফুচকার ব্যবসা শুরু করতে পারবেন । ফুচকা এবং চটপটি বিক্রির ব্যবসাগুলো বিশেষ করে বিভিন্ন পার্ক , পর্যটন এরিয়া , হাট-বাজার এবং স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মধ্যে বেশি লক্ষ্য করা যায় ।

 

একটি চটপটি এবং ফুচকা তৈরির ব্যবসা শুরু করতে কি পরিমাণ মূলধন প্রয়োজন ?  কি কি সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন ইত্যাদি বিস্তারিত জানতে আমাদের ফুচকা ব্যবসা আইডিয়া আর্টিকেলটি পড়ুন ।

 

৮/ কাপড়ের ব্যবসা

 

কাপড় হল একটি উপাদান যা প্রাকৃতিক এবং বিভিন্ন ধরনের কৃত্রিম সুতার মাধ্যমে তৈরি করা হয়ে থাকে ।  এই কাপড় এর মাধ্যমে আমরা আমাদের দেহ এবং লজ্জাস্থান আবরণ করে থাকি ।

 

এছাড়াও কাপড় বা বস্ত্র আমাদের একটি মৌলিক অধিকার ।  যার ফলে কাপড়ের রয়েছে আকাশচুম্বী চাহিদা তাই আপনি কাপড়ের দৈনিক আয়ের ব্যবসাটি করে টাকা ইনকাম করতে পারেন ।

 

কাপড়ের ব্যবসা আপনি নানান উপায় করতে পারবেন যেমন : মৌসুমী বা সিজনাল কাপড়ের ব্যবসা ,ছেলেদের কাপড়ের ব্যবসা, মেয়েদের কাপড় নিয়ে ব্যবসা ,  বাচ্চাদের কাপড় নিয়ে ব্যবসা অর্থাৎ বিভিন্ন উপায় অবলম্বন করে আপনি কাপড়ের ব্যবসা করতে পারেন ।

 

কি ধরনের ব্যবসা করবেন বা শুরু করবেন তার সম্পূর্ণটা নির্ভর করে আপনার পুজিঁ এবং কাপড়ের ব্যবসার দক্ষতার উপর । কিভাবে একটি লাভজনক কাপড়ের ব্যবসা শুরু করা যায় তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের কাপড়ের ব্যবসার আইডিয়া  আর্টিকেলটি পড়ুন । 

 

৯/ খাবার হোটেলের ব্যবসা

 

শুধুমাত্র খাবারের হোটেল দিয়েও আপনি একটি দৈনিক আয়ের ব্যবসা গড়ে তুলতে পারেন । বিশেষ করে শহরাঞ্চলে গ্রাম থেকে আসা বিভিন্ন ব্যাচেলার মানুষ খাবার হোটেলগুলোতে ভিড় করে থাকে ।

 

তাই সুস্বাদু মানের খাবার তৈরি করে একটি হোটেল ব্যবসা শুরু করতে পারলে দৈনিক ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

 

তবে খাবার হোটেলের ব্যবসা দেওয়ার পূর্বে বিভিন্ন জিনিস বিশ্লেষণ করতে হবে । যেমন : বাজার-হাট , শিল্পপ্রতিষ্ঠান এরিয়া ,পর্যটন এলাকা এই ধরনের জায়গায় খাবারের হোটেলগুলো সবচেয়ে ভালো ব্যবসা করে থাকে ।

 

তাই খাবারের হোটেলের ব্যবসা শুরু করার পূর্বে এই ধরনের জায়গার খোঁজ করে দেখুন । একটি খাবারের হোটেল ব্যবসা শুরু করতে আপনার ৩ – ৫ লক্ষ টাকার মতো পুঁজির প্রয়োজন হতে পারে ।

 

১০/ পান – সিগারেটের ব্যবসা

 

আমাদের আজকের দৈনিক আয়ের ব্যবসা লেখাটিতে আপনারা হয়তো লক্ষ্য করেছেন কিছু কিছু মাঝারি ব্যবসা দেওয়ার পাশাপাশি একদম ছোট ছোট ব্যবসার তালিকাও আজকের লেখাতে যুক্ত করা হয়েছে ।

 

এমনটি করার প্রধান কারণ হচ্ছে যাদের কাছে পর্যাপ্ত মূলধন নেই তারাও যেন ব্যবসা করতে পারেন ।

 

অল্প পুঁজিতে ব্যবসা করার আরো একটি আইডিয়া হল পান-সিগারেটের ব্যবসা । পান- সিগারেটের এই ছোট ব্যবসা করে আপনি দৈনিক টাকা উপার্জন করতে পারবেন ।

 

বিভিন্ন হোটেলের পাশে অথবা বাজার – হাটের মধ্যে পান-সিগারেটের দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারলে ভালো অর্থ উপার্জন করা যায় ।

 

পান- সিগারেটের ব্যবসা করতে আপনাকে পাইকারি বাজার থেকে পান ও সিগারেট কিনে নিয়ে আসতে হবে এবং তা আপনার দোকানে খুচরা মূল্যে কাস্টমারের নিকট বিক্রি করতে হবে । এভাবেই আপনাকে পান-সিগারেটের দৈনিক আয়ের ব্যবসাটি করতে হবে । 

 

১১/ মাছের খুচরা ব্যবসা

 

আমাদের বাঙ্গালীদের অন্যতম একটি খাবার হল মাছ ।  আমাদের কাছে মাছ এতটাই জনপ্রিয় যে এই মাছের কারণে আমরা সারা বিশ্বে মাছে – ভাতে বাঙালি নামে পরিচিত ।  মাছ উৎপাদনেও বাংলাদেশ বিশ্বের চতুর্থ স্থানে অবস্থান করছে ।

 

তাই এদেশের মাছের ব্যবসা করাটা অন্যান্য ব্যবসার চেয়ে তুলনামূলক অনেকটাই সহজ ।  আপনি বিভিন্ন মাছের খামারিদের বা মাছের পাইকারি বাজার থেকে মাছ কিনে এনে তা খুচরা দামে বিক্রি করতে পারেন ।

 

দৈনিক আয়ের ব্যবসার মধ্যে মাছের ব্যবসা অন্যতম একটি লাভজনক আইডিয়া । খুবই অল্প পুজিতে আপনি এই দৈনিক ইনকামের ব্যবসাটি শুরু করতে পারবেন ।

 

মাত্র ১০- ১৫ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে আপনি প্রতিদিন ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন ।

 

১২/ ফল বিক্রির ব্যবসা

 

বিভিন্ন পাইকারি ফল বাজার থেকে আম , কাঁঠাল , লিচু , তরমুজ , আনারস , কলা , কমলা , মালটা , আঙ্গুর , পেঁপে , বড়ই  ইত্যাদি ফল ফ্রুট কিনে এনে তা খুচরা দামে কাস্টমার এর নিকট বিক্রি করতে পারেন ।

 

চট্টগ্রামের রিয়াজউদ্দিন বাজারে পাইকারি দামে এই ধরনের ফলগুলো বিক্রি করা হয়ে থাকে ।  প্রতিটি জেলাতে কমবেশি বিভিন্ন ধরনের পাইকারি বাজার রয়েছে ।

 

মাত্র ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করেও আপনি এই ফলের ব্যবসা শুরু করতে পারবেন ।  তবে আপনি যদি দোকান দিয়ে ফলের ব্যবসা করতে চান সে ক্ষেত্রে ২- ৩ লক্ষ টাকার মতো পুজিঁর প্রয়োজন হতে পারে ।

 

তবে ফলের ব্যবসা শুরু করার পূর্বে সব সময় বাজারের দাম এবং বাজারে কোন ফলের চাহিদা বেশি তা বিচার বিশ্লেষণ করে ব্যবসা করতে হবে ।

 

উদাহরণস্বরূপ :  আপনি যদি আম-কাঁঠালের মৌসুমে আপেল – কমলা বিক্রির ব্যবসা করেন তাহলে তেমন লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না ।  তাই সব সময় মৌসুমী ফল ফ্রুট গুলো বেশি বিক্রি করার চেষ্টা করবেন ।

 

১২/ আচার তৈরীর ব্যবসা 

 

আচার একটি মুখরোচক খাবার ।  যার নাম শুনলেই আমাদের জিভে জল এসে পড়ে ।  খাবারের রুচি বাড়াতে প্রায় সময় আচার ব্যবহার করা হয়ে থাকে ।

 

আচার বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে যেমন :  আমের আচার ,  তেতুলের আচার , বরইয়ের আচার , চালতার আচার  ইত্যাদি ।

 

আম , তেতুল , বড়ই , চালতা এই ফলগুলোর সাথে বিভিন্ন মাশলা মিক্স করে আচার তৈরি করা হয়ে থাকে । আচ্ছা আমাদের দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে প্রচুর জনপ্রিয় বিশেষ করে বাংলাদেশ ,  ভারত ,  পাকিস্তান ,  শ্রীলংকা এই দেশগুলোতে আচার খুবই জনপ্রিয় এবং মুখরোচক খাবার হিসেবে পরিচিত ।

 

যার ফলে এর রয়েছে আকাশচুম্বী চাহিদা । তাই আপনি আচার তৈরি বিভিন্ন উপাদান দিয়ে আচার তৈরি করতে পারেন এবং তা পাইকারি ও খুচরা মূল্যে বিভিন্ন দোকানে অথবা সরাসরি ভোক্তাদের নিকট বিক্রি করতে পারেন ।

 

নিয়মিত আচার তৈরি ও বিক্রি করে আপনি একটি  দৈনিক আয়ের ব্যবসা গড়ে তুলতে পারবেন ।

 

মাত্র ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করেন আপনি আচার তৈরি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারবেন । 

 

১৩/ বই বিক্রির দোকন দিয়ে ব্যবসা

 

বই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি জ্ঞানের উৎস ।  বই পড়ার মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারে । বই আমাদেরকে ভালো খারাপ বিচার-বিশ্লেষণ করা শক্তি দেয় ।

 

তাই বই আমাদের সকলের জন্যই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ  হয়ে উঠেছে ।  আপনি যদি স্কুল , কলেজ অথবা বিশ্ববিদ্যালয় এর পাশে একটি লাইব্রেরি বা বইয়ের দোকান ব্যবসা শুরু করতে পারেন তাহলে অল্প দিনে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

 

বইয়ের ব্যবসা করে রকমারি ডটকমের মত বিভিন্ন অনলাইন ব্যবসায়ীরা ইতিমধ্যে সফলতা অর্জন করে নিয়েছে । আপনি অনলাইন এবং অফলাইন দুটি মাধ্যমেই বইয়ের ব্যবসা করে দৈনিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

 

অফলাইনে বইয়ের ব্যবসা শুরু করতে হলে অবশ্যই ব্যবসার অবস্থান নির্বাচন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে । স্কুল কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় এর পাশে আপনাকে লাইব্রেরী অথবা বইয়ের দোকান ব্যবসা শুরু করতে হবে ।

 

অন্যদিকে আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে বইয়ের ব্যবসা শুরু করেন সেক্ষেত্রে ব্যবসার অবস্থান নিয়ে আপনাকে দুশ্চিন্তা করতে হবে না ।

 

পরিশেষে – Finally

 

আজকের দৈনিক আয়ের ব্যবসা আর্টিকেলে আপনাদের সাথে লাভজনক প্রায় ১৩টি ব্যবসার আইডিয়া শেয়ার করা হল । আজকের শেয়ারকৃত সকল ব্যবসায়ী ইতিমধ্যে আমাদের সমাজে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা হিসেবে পরীক্ষিত ও পরিচিত ।

 

আজকের লেখার মধ্যে আপনার কাছে কোন আইডিয়াটি সবচেয়ে ভালো লেগেছে তা কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না । 

 

এবং আর্টিকেলটি ভালো লাগলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন । 

 

 

তথ্যসূত্র : উইকিপেডিয়া এবং ইন্টারনেট  ।

MD Imran hossan

২০১৯ সাল থেকে যুক্ত আছি এই টেকনোলজির দুনিয়ার সাথে । যদিও আমার পড়াশোনা ব্যবসা ও বাণিজ্য নিয়ে । ওয়েবসাইট ডেভেলপ করে দেওয়ার পাশাপাশি বর্তমানে লিখালিখি ও ব্লগিং সেক্টর এর সাথে যুক্ত আছি । নিজের জ্ঞান কে অন্যদের সাথে ভাগাভাগি করে নেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠা করেছি Goafta.com ওয়েবসাইট । স্বপ্ন দেখছি একটি বিশ্বস্ত ব্যবসায়িক ব্লগ গড়ে তোলার । এবং নিজে যতটুকু জানি তা সবার কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার , তাতে যদি কারো শস্য পরিমাণও উপকার হয় তাতেই আমার প্রশান্তি |

Leave a Reply